উত্তরটা দেব একজন খাঁটি অর্থনীতির ছাত্রের মত: it depends.

কাউকে উপদেশ দেবার যোগ্যতা রাখিনা, তবে আমি কিভাবে করেছি সেটা বলতে পারি।

আমার ব্যাকগ্রাউন্ড একটু বলে নিই: নর্থসাউথের ছাত্র, বিসিএস দিয়ে পুলিশে ঢুকেছি পাস করার পরপরই, চাকুরির পাশাপাশি দুটো মাস্টার্স করেছি জাপান আর আমেরিকায়।

পিএইচডি এ্যাডমিশন হয়েছে আমেরিকায়, তবে ডেফার করেছি এক বছর।আপাতত: দেশে আছি কিছুদিন, চাকুরি করছি।

বিসিএস একটা ব্রুটাল পরীক্ষা, এতে মেধার চেয়ে ধৈর্যের পরীক্ষা হয় বেশি। কেউ যদি বলে যে সে হাসতে হাসতে বিসিএস পাস করে ফরেন/পুলিশ/এ্যাডমিন/কাস্টমস/অডিট/ট্যাক্স ক্যাডার পেয়েছে- সে হয় নেতাজী সুভাষচন্দ্র বসু নয়ত মিথ্যুক।

আমি কিভাবে করেছি বলি: পশুর মত পড়াশোনা করেছি শেষ সেমেস্টার থেকে, দুহাজার আট থেকে দুহাজার দশ এই দুই বছর (ফর্ম তোলা থেকে চাকুরিতে যোগদান) ফুল টাইম অন্য কিছুই করিনি(পার্ট টাইম করেছি)। বিসিএসের রেজাল্ট ভালো ছিল আলহামদুলিল্লাহ।

চাকুরিতে ঢোকার পর কিছুদিন চাকুরি করেছি, অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি, সেই অভিজ্ঞতার উপর ভিত্তি করে স্কলারশিপ নিয়ে বিদেশ পড়তে গিয়েছি। আমেরিকায় স্কলারশিপ পাইনি, তবে আমার বিশ্ববিদ্যালয়ের লোন রিপেমেন্ট এসিস্টেন্স প্রোগ্রামের সুবাদে ভেজাল হয়নি খুব একটা।

কাজেই, কেউ যদি দুটোই করতে চায়, আমার মতে আগে সার্ভিসে ঢুকে তারপর চাকুরির পাশাপাশি বাইরে পড়তে যাবার প্রস্তুতি নেয়া উচিত।

আরেকটা ব্যাপার আছে।সরকারী চাকুরিতে যত অল্প বয়েসে ঢুকবেন তত ভালো, তত উপরে যাবার সম্ভাবনা। আপনি অনার্সের পর বিদেশে মাস্টার্স করতে গেলেন, ফেরত আসলেন বিশাল নামকরা ডিগ্রি নিয়ে, তারপর ঢুকলেন সরকারী চাকুরিতে।সিম্পল অনার্স পাস করে চিকনগুনীয়া কলেজের যে ছাত্রটি আপনার আগে চাকুরিতে ঢুকবে, আপনার এমআইটির পিএইচডি থাকলেও সেই আপনার বস হবে।

“দেখি এক্সপেরিয়েন্স নিয়ে” এই মনোভাব নিয়ে দয়া করে বিসিএস দিতে বসবেন না, সময় শ্রম দুটোই নষ্ট হবে।

আমার পথ ছিল এমন:

অনার্স>বিসিএস>পুলিশ একাডেমি>জাপান>আমেরিকা

এইবেলা আরেকটা বিষয় বলি। দুটোই আপনি করবেন, তবে একটা একটা করে। কনফুসিয়াস তো বলেই গিয়েছেন- One who tries to catch two rabbits catches neither

এটা হতে পারে যে দুই তিন বছর ট্রাই করেও বিসিএস এ হলনা। সেটা যে কোনো কম্পিটিটিভ প্রসেসের জন্যই সত্য, কি আর করা? আমার বিসিএস না হলে জীবনে দু বছর মার যেত 😞 এই রিস্ক নিয়েছি বয়েস কম থাকায় (23), এখন পারতাম না।

যদি রিসার্চার হতে চান, বিসিএস দেয়ারই দরকার নাই।

যদি বিসিএস চান, হায়ার স্টাডি পরে করলে সমস্যা নাই, জ্ঞানের রাজ্য আর চাকরির সিনিয়রিটি তো এক না।

আরেকটা জিনিস, ভুলেও চাকুরি ছেড়ে বিসিএস প্রিপারেশন নিতে যাবেন না। বুঝে শুনে পড়লে চাকুরির পাশাপাশিই বিসিএস প্রস্তুতি নেয়া যায়, আমার বেশিরভাগ ব্যাচমেট তাই করেছে, আমিও তাই করেছি।বিআইডিএস এ রিসার্চ অফিসার থাকা অবস্থায় রেজাল্ট হয়েছে, তারপর জয়েন করেছি।

(এ কথাগুলো যারা আমার মত সাধারণ, মাঝারি মানের ছাত্র তাদের জন্য।জিনিয়াসদের আমি সম্মান করি, তাঁদের ব্যাপারে আমার বলার মত জ্ঞান বা যোগ্যতা নেই।মানুষের সম্ভাবনা অপরিসীম, চেষ্টা করলে সে কি করতে পারে তা কেউ জানেনা)

শুভকামনা!

সংযোজনী: দয়া করে বিসিএস বা বিদেশে হায়ার স্টাডিকে মনুষ্যত্ব বা সাফল্যের মাপকাঠি ভাববেন না। এ দুনিয়াতে বড় মানুষেরা এ দুটো ছাড়াই বড় হয়েছেন। আমি আমার অভিজ্ঞতা বলেছি মাত্র, এটাকে লার্জার দ্যান লাইফ কিছু বুঝাইনি।

– মাশরুফ হোসেন

Love the article? Press Like