পেট্রোলিয়াম এন্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিংকে মূলত পি.এম.ই বলা হয়। একজন পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ার সাধারণত তেল,গ্যাস জাতীয় পদার্থের রিজার্ভের সন্ধান, পরিমাণ ও খননের কাজ করে থাকেন।

এছাড়া কূপ থেকে তেল ও গ্যাস জাতীয় পদার্থ তোলার সকল নকশা ও পরিবেশ সংরক্ষণের কাজ করে থাকেন।

বাংলাদেশে

  • যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়,
  • শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়,
  • চট্রগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়,
  • মিলিটারি ইন্সটিটিউট অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি বিশ্ববিদ্যালয়

থেকে পেট্রোলিয়াম এন্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং এ স্নাতক ডিগ্রী দেওয়া হয়।

এছাড়াও বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (BUET) স্নাতকোত্তর পড়বার সুযোগ আছে।

পেট্রোবাংলা ও এর অধীনস্ত অনেক কোম্পানিতে কাজের সুযোগ আছে এই বিভাগের শিক্ষার্থীদের। তবে বাংলাদেশে পেট্রোলিয়াম ও মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারদের কাজের সুযোগ অনেকটা সংকুচিত বলা যায়।

 

আল মোহাইমিনুল ইসলাম

আল মোহাইমিনুল ইসলাম

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে এটি একটি নতুন সাবজেক্ট। অনেকের ধারণা জিওলোজি আর এই সাবজেক্ট একই।

কিন্তু এটা একটা ভুল ধারণা। এই বিষয়টি মেকানিক্যাল, কেমিক্যাল, সিভিল, কম্পিউটার, জিওলোজির মিলিত একটা সাবজেক্ট।

সর্বোপরি অধিকাংশ বিষয়ে পারদর্শীতা লাভ করে এই বিষয়ের শিক্ষার্থীরা। কিন্তু বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে সরকারি চাকরিক্ষেত্রে পেট্রোলিয়াম এন্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থীরা এখনও অবহেলিত হচ্ছে।

অধিকাংশ বেসরকারি পেট্রোলিয়াম প্রতিষ্ঠানের চাকরির সার্কুলারে পেট্রোলিয়াম এর নাম উল্লেখ থাকে না। যা খুবই দু:খজনক।

২০১৬ সালে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এর পেট্রোলিয়াম এন্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ কর্তৃক এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল যেখানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব নসরুল হামিদ।

তিনি উক্ত অনুষ্ঠান থেকে এই বিষয় সম্পর্কে অবহিত হয়ে চেষ্টা করেছেন পেট্রোবাংলা এবং অন্যান্য কোম্পানিতে এই বিষয়ের শিক্ষার্থীরা যেন সুযোগ সুবিধা পায়।

তবুও সকল সার্কুলারে পেট্রোলিয়ামের নাম উল্লেখ এখনও পাওয়া যায় না।

সম্প্রতি সিলেট গ্যাস ফিল্ড, কর্ণফুলী গ্যাস ট্রান্সমিশন এবং তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এর ২০২০ সালের চাকরির সার্কুলারে পেট্রোলিয়ামের কোন নাম উল্লেখ পাওয়া যায় নি।

কর্তৃপক্ষকে বিশেষভাবে দৃষ্টি আকর্ষণ করছি এই বিভাগের শিক্ষার্থীদের সুযোগদানের জন্য। সম্প্রতি বাংলাদেশ এনার্জি সেক্টরে দিন দিন উন্নতি করছে।

ভিশন-২০৪১ বাস্তবায়নে পেট্রোলিয়াম এন্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়াররা সব থেকে বেশি অবদান রাখবে বলে আশাবদী।

বাংলাদেশের সব থেকে বড় চাকরিক্ষেত্র বলতে আমরা বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (BCS) কে বুঝি।

এই চাকরির সার্কুলারে বিভিন্ন প্রকৌশল/ ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ের কোটা থাকলেও পেট্রোলিয়াম এন্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ের উপর কোনো কোটা রাখা হয় নি।

কিন্তু ভবিষ্যতে বাংলাদেশকে আরও সামনের দিকে এগিয়ে নিতে যারা সব থেকে বেশি অবদান রাখতে পারে তারা হচ্ছেন পেট্রোলিয়াম এন্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে বিশেষভাবে অনুরোধ করছি এই বিষয়ের উপর বিসিএস এ নির্দিষ্ট পরিমাণ কোটা রেখে উক্ত শিক্ষার্থীদের দেশ পরিচালনা করার সুযোগ করে দেয়া হোক।

আল মোহাইমিনুল ইসলাম
শিক্ষার্থী,
পেট্রোলিয়াম এন্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ,
শিক্ষাবর্ষ: ২০১২-১৩
যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (JUST)
Mail: mohaiminulislam24@gmail.com